বিকাশ ভবনের সামনে আন্দোলনরত শিক্ষকদের ‘BJP ক্যাডার’ বলে কটাক্ষ ব্রাত্য বসু

0
423

 

লড়াই ২৪ ডেস্ক: বিকাশ ভবনের সামনে আন্দোলনরত শিক্ষকদের BJP ক্যাডার বলে কটাক্ষ করলেন পশ্চিমবঙ্গের শিক্ষামন্ত্রী ব্রাত্য বসু। এদিন বাম আমলের সঙ্গে তুলনা করে ফেসবুকে একটি দীর্ঘ পোস্ট করেন তিনি। পোস্টে তিনি বলেন, ‘বাম সরকারের আমলে পঞ্চায়েত এবং গ্রামোন্নয়ন বিভাগের অধীনে SSK এবং MSK-র সহায়ক, সম্প্রসারকরা নামমাত্র সাম্মানিকের বিনিময়ে কাজ করতেন। কাজের নিশ্চয়তা, আর্থিক নিরাপত্তা এবং অবসরকালীন সুযোগ-সুবিধা কিছুই ছিল না। কিন্তু ২০২০ সালের ২০ ডিসেম্বর থেকে মমতা বন্দোপাধ্যায়ের সরকার SSK এবং MSK-গুলিকে বিদ্যালয় শিক্ষা বিভাগের অধীনে এনে একটি সুসংবদ্ধ রূপ দিয়েছে। সহায়ক, সহায়িকাদের সাম্মানিক বাড়িয়ে মাসিক ১০ হাজার ৩৪০ টাকা এবং সম্প্রসারক, সম্প্রসারিকাদের সাম্মানিক বাড়িয়ে ১৩ হাজার ৩৯০ টাকা করা হয়েছিল। বছরে ৩ শতাংশ বেতন বৃদ্ধির ব্যবস্থা করা হয়েছে। প্রত্যেককে স্বাস্থ্যসাথী প্রকল্পের অধীনে আনা হয়েছে।’ তিনি আরও বলেন, ” যারা ৬০ বছর বয়সে অবসর নিতে চান, তাদের সরকার তরফে তিন লাখ টাকা দেওয়ার ব্যবস্থা করা হয়েছে।”

বাকিদের ক্ষেত্রেও ওই পরিষেবা প্রদানের কথা চলছে। তাঁর সংযোজন, “মাতৃত্বকালীন ছুটি, বছরে ১৮টি লিভ ও নির্দিষ্ট কিছু ক্ষেত্রে প্রভিডেন্ট ফান্ডের ব্যবস্থা করা হয়েছে। কিন্তু এরপরও যারা আন্দোলন করে চলছেন, তারা শিক্ষক শিক্ষিকা নন, BJP ক্যাডার।”

আরও পড়ুন………………বেশি খেলে বিপদও ডেকে আনে কাজু বাদাম! জানুন সেলিব্রেটি পুষ্টিবিদের পরামর্শ

মন্ত্রীর ওই পোস্টের প্রসঙ্গে শিক্ষক ঐক্য মুক্ত মঞ্চের জেলারেল সেক্রেটারি মইদুল ইসলাম জানিয়েছেন, “ব্রাত্য বসু শিক্ষিত ব্যাক্তি। তবু বলব, উনি যা বলছেন ভুল বলছেন। অমিত শাহের সভায় আমরা কালো পতাকা দেখিয়েছি। ছবি চাকি ও অনিমা নাথ তৃণমূল করে। বিধানসভা নির্বাচনে আমি ISF-এর হয়ে লড়েছি। ৪০ হাজার ভোট পেয়েছি। ব্রাত্য বসু চার মাস মন্ত্রী হয়ে একদিনও আমাদের সঙ্গে দেখা করেননি। পার্থ চট্টোপাধ্যায় ও মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় দেখা করেছিলেন। কিন্তু ব্রাত্য বসু তা করেননি।”

তিনি আরও বলেন, “মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে মতান্তর হলেও, তিনি বেতন বাড়িয়েছেন। পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের সঙ্গে ২৫ বার বৈঠক হয়েছে আমাদের। আর ব্রাত্য বসু এসব না জেনেই ফেসবুক পোস্ট করেছেন। আমাদের BJP বলে দাগিয়ে দিয়েছেন। সব দলের মানুষজন আমাদের সঙ্গে রয়েছেন। এটা রাজনীতির প্রশ্ন নয়। পেটের টানে সকলে নড়ছেন। রুটি-রুজির প্রশ্ন এটি।

অন্যদিকে, আবার বিকাশ ভবনের সামনে বিষ খাওয়ার অভিযোগে পাঁচ জনের বিরুদ্ধে স্বতঃপ্রণোদিত মামলা দায়ের করলো বিধাননগর পুলিশ কমিশনারেট।

Advertisement
শেয়ার করে ভারতীয় হওয়ার গর্ব করুন

আপনার মতামত জানান