অমানবিক! নেশার টাকা না দেওয়ায় ছেলের হাতে খুন বাবা

0
38

অমানবিক! নেশার টাকা না দেওয়ায় ছেলের হাতে খুন বাবা

বর্ধমান: মানুষ দিন দিন কতটা অমানবিক হয়ে উঠছে, তার উদাহরণ স্বরূপ একাধিক ঘটনা ঘটেই যাচ্ছে। নেশা করার জন্য বাবার কাছ থেকে টাকা চেয়েছিল ছেলে। বাবা টাকা দিতে নারাজ হলে ধারালো ছুরি দিয়ে বাবাকে হত্যা করে ছেলে।

বৃহস্পতিবার দুপুরে ঘটনাটি ঘটে মেমারি ১ নম্বর ব্লকের দলুইবাজার ২ নম্বর গ্রাম পঞ্চায়েতের নীলকুঠি গ্রামে। অভিযুক্ত ছেলের নাম তন্ময় ওরফে তনু সরকার। তাকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

লকডাউনের জন্য কাজ তেমন পাচ্ছিল না রাজমিস্ত্রি তনু। নেশার টাকা জোগাড় করতেও পারছিল না। বেশ কিছুদিন ধরে এই নিয়ে অশান্তি চলছিল বাড়িতে। বৃহস্পতিবার দুপুর ৩:৩০ টে নাগাদ খেতে বসেছিল সে।

সেই সময় মাঠ থেকে কাজ সেরে বাড়ি ফেরেন ৬০ বছরের বাবা প্রভাস সরকার। তখন বাবার কাছে টাকা চায় ছেলে। এই নিয়ে অশান্তি শুরু হয় বাবা ও ছেলের মধ্যে। তখন ঘরে থাকা ধারালো ছুরি দিয়ে তনু তার বাবা প্রভাসের গলা কেটে দেয় বলে অভিযোগ।

রক্তাক্ত অবস্থায় প্রভাসকে বড়শুল গ্রামীণ হাসপাতালে নিয়ে যান পরিবারের লোকেরা। হাসপাতালে পৌঁছনোর পরেই মৃত্যু হয় তাঁর। খবর পেয়ে মেমারি থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে যায় এবং বাড়ি থেকেই গ্রেপ্তার করে তনুকে।

প্রভাস সরকারের দুই ছেলে তনু ও প্রণব। বড় ছেলে প্রণবও রাজমিস্ত্রির কাজ করেন। একমাত্র বোনের বিয়ে হয়েছে মশাগ্রাম এলাকায়। জামাই সুবল মিস্ত্রি মশাগ্রামে সব্জি বিক্রি করেন।

ঘটনার খবর পেয়ে সকলেই বড়শুল হাসপাতালে হাজির হন। প্রণব বলেন, ”ঘটনার সময় আমি বাড়ি ছিলাম না। খবর পেয়ে পৌঁছে দেখি, ঘর রক্তে ভেসে যাচ্ছে। কোনওরকমে বাবাকে নিয়ে হাসপাতালে যাই। কিন্তু শেষরক্ষা হল না।”

তিনি জানান, লকডাউনে সে ভাবে কাজ হচ্ছিল না। তারই মধ্যে নেশার টাকার জন্য অশান্তি লেগে থাকত বাবা-ছেলের। শুক্রবার প্রভাসের দেহ ময়না-তদন্তে পাঠানো হয়েছে।

শেয়ার করে ভারতীয় হওয়ার গর্ব করুন

আপনার মতামত জানান