এবার কি পশ্চিমবঙ্গেও ঢুকে গেল পঙ্গপাল

0
30

ঝাড়গ্রাম: সত্যি কী তাহলে পশ্চিমবঙ্গেও ঢুকে পড়ল পঙ্গপালের দল? ঝাড়গ্রাম জেলার সাঁকরাইল ব্লকের একটি গ্রামে চাষের জমিতে পঙ্গপালের হামলাতে লাউ এবং আদা গাছের ক্ষয় ক্ষতি হয়েছে বলে মনে করা হচ্ছে। ঘটনায় আতঙ্ক ছড়িয়েছে স্থানীয় কৃষক মহলে।

যদিও ঝাড়গ্রাম জেলা কৃষি দপ্তরের কাছে এরকম কোনও খবর নেই বলে দাবি করেছেন কৃষি আধিকারিকরা। তবে করোনা আর আমফান আতঙ্কের পর পঙ্গপালের উপদ্রবে ঘুম উড়েছে কৃষকদের। দু’সপ্তাহ আগে আমফানের জেরে জেলায় চাষবাসের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। বোরো ধান-সহ সবজির খেত কার্যত তছনছ হয়ে গিয়েছে। তার উপরে পঙ্গপালের দল এমন হামলা শুরু করলে সমূহ ক্ষতি হতে পারে বলে আশঙ্কায় কাঁটা কৃষকরা।

সাঁকরাইল গ্রাম পঞ্চায়েতের অন্তর্গত জোড়াশাল গ্রামের চাষের জমিতে পঙ্গপাল দেখা গিয়েছে বলে দাবি করেছেন স্থানীয় বাসিন্দাদের একাংশ। এখন বেশিরভাগ জমি থেকে ধান কাটা হয়ে গিয়েছে। তবে করলা, ঝিঙে, কুমড়ো, পটল, কুঁদরি-সহ বিভিন্ন ধরনের সবজি রয়েছে জমিতে। স্থানীয়দের মধ্যে একাংশের বক্তব্য, জমিতে বেশ কিছু পঙ্গপাল জাতীয় পতঙ্গ দেখা গিয়েছে। এগুলি সাধারণত জমিতে থাকে। খুব বেশি সংখ্যায় এদের দেখা যায়নি।

জোড়াশাল গ্রামের বাসিন্দা সত্যজিৎ দে বলেন, ‘গত দু, একদিন বিকেলে ধূসর রঙের পঙ্গপাল দেখা গিয়েছে। আদা, লাউ গাছের দফারফা করে দিয়েছে’। দেশের বিভিন্ন রাজ্যে পঙ্গপালের উপদ্রোপে বিঘার পর বিঘা জমির ফসল নষ্ট হয়ে গিয়েছে। তবে ঝাড়গ্রাম জেলায় এখনও এরকম কিছু ঘটেনি বলে জানিয়েছে কৃষি দপ্তর।

ঝাড়গ্রাম জেলা কৃষি দপ্তরের ডেপুটি ডিরেক্টর মানস রঞ্জন প্রধান বলেন, ‘আমাদের জেলায় পঙ্গপালের কোনও খবর নেই। রাজ্য থেকে এখনও পর্যন্ত এই সংক্রান্ত বিষয়ে নির্দেশও আসেনি। জমিতে কীট-পতঙ্গ থাকেই। তবে আমরা খবর নিয়ে দেখবো’।

রাজস্থান, মধ্যপ্রদেশ ও উত্তরপ্রদেশে হামালা হানা দিয়ে ব্যাপক ফসলের ক্ষয়ক্ষতি করছে। তারপরে সেই পঙ্গপালের দল ধীরে ধীরে পূর্বের দিকে সরছে বলেও জানা গিয়েছিল। এমনকি ঝাড়খন্ড পর্যন্ত চলে এসেছে বলেও খবর ছিল। এবার ঝাড়গ্রামের জোড়াশাল গ্রামে সেই পঙ্গপালের দলই ঢুকে পড়ল কি না, তা নিয়ে সংশয় তৈরি হচ্ছে কৃষি দপ্তরে।

Advertisement
শেয়ার করে ভারতীয় হওয়ার গর্ব করুন

আপনার মতামত জানান