মনীশ মালহোত্রার জন্মদিন: একটি বুটিকে কাজ করতেন, এই ছবিটি তার জীবন বদলে দিয়েছে, আজ ব্র্যান্ডটি বিশ্বব্যাপী একটি নাম হয়ে গেছে

Loading

শুভ জন্মদিন মনীশ মালহোত্রা: মণীশ মালহোত্রা আজ তার 56 তম জন্মদিন উদযাপন করছেন। মনীশ 30 বছরেরও বেশি সময় ধরে একজন ফ্যাশন আইকন। মনীশ 1990 সালের স্বর্গ চলচ্চিত্রের মাধ্যমে সাফল্যের প্রথম সিঁড়িতে আরোহণ করেন। এই ছবির পোশাকই মানুষের নজর কেড়েছে। এর পর একের পর এক ছবি পান মনীশ। মনীশ তার কঠোর পরিশ্রম এবং মেধার ভিত্তিতে সারা বিশ্বে নাম কুড়িয়েছেন। আজ ভারত থেকে ইউরোপ ও আমেরিকার মতো বড় দেশে মনীশের পোশাকের চাহিদা আকাশচুম্বী।

মুম্বাই। ডিজাইনার মনীশ মালহোত্রা আজ 56 বছর বয়সী হয়েছেন (মণীশ মালহোত্রার 58তম জন্মদিন)। তিন দশক ধরে ডিজাইনিং জগতের রাজা মনীশ মালহোত্রা আজ সারা বিশ্বে পরিচিত। মনীশ মালহোত্রার ডিজাইন করা পোশাকের চাহিদা ভারত থেকে ইউরোপ এবং আমেরিকার মতো বড় দেশে। মনীশ তার কঠোর পরিশ্রম এবং প্রতিভার ভিত্তিতে সাধারণ থেকে বিশেষ হয়ে উঠতে বহু বছর ধরে তার হিল ঘষেছেন। আজ মনীশ মালহোত্রা ফ্যাশন জগতের একজন আইকন হয়ে উঠেছেন।

https://news.google.com/publications/CAAqBwgKMJ-knQswsK61Aw?hl=en-IN&gl=IN&ceid=IN:en

 

মনীশ মালহোত্রা, যাকে ফ্যাশনের সমার্থক বলা হয়, তিনি এখন ছবির গল্পও লিখছেন এবং পরিচালক হওয়ার স্বপ্নও দেখছেন। মুম্বাইয়ের বান্দ্রা এলাকায় একটি বুটিক দিয়ে কেরিয়ার শুরু করেছিলেন মনীশ। এখানে একটি বুটিকের কাজ করার সময় মণীশ স্কেচ তৈরি করতেন। শৈশব থেকেই চলচ্চিত্র এবং গ্ল্যামারের জগতে পাগল মনীশ শীঘ্রই তার গন্তব্য পরিষ্কার করে ফেলেন।

 

নিজেই সাফল্যের গল্প বলেছেন

 

ইউটিউব চ্যানেল ম্যাশেবল ইন্ডিয়াকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে মনীশ বলেছেন, ‘আমি ছোটবেলা থেকেই চলচ্চিত্রের প্রতি শখ। আমার বাবা-মাও প্রথম থেকেই বিষয়টি জানতেন এবং তারাও আমাকে অনেক উৎসাহিত করেছিলেন। আমার মা ও বাবা দুজনেই আমাকে চলচ্চিত্রের জন্য উৎসাহ দিতেন। আমার মনে আছে 10ম শ্রেণীতে পড়ার সময় প্রতি শুক্রবার আমি ছবিটি মুক্তির জন্য অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করতাম। মনীশ তার স্কুলের সময়কালে শিল্পে অত্যন্ত দক্ষ ছিলেন এবং চমৎকার স্কেচ করতেন। মনীশ ব্যাখ্যা করেছেন যে ‘স্কুলের পরে, আমি বান্দ্রায় একটি বুটিকের কাজ শুরু করি। এটা আমার জন্য মজার ছিল কারণ আমার সারাদিন জামাকাপড় আর ডিজাইনের মধ্যে কেটে যেত। এখান থেকেই আমি আমার ফ্যাশন সেন্সকে শাণিত করে মডেলিংয়ের পথ ধরি। শুরু থেকেই ফ্যাশনের প্রতি অনুরাগী, তাই খুব তাড়াতাড়ি ডিজাইনিং জগতে আসেন।1990 সালের স্বর্গ চলচ্চিত্র থেকে স্বীকৃতি পান

 

 

 

মনীশ মালহোত্রা ১৯৯০ সালে স্বর্গ ফিল্ম থেকে স্বীকৃতি পান। গোবিন্দ, রাজেশ খান্না এবং জুহি চাওলা অভিনীত চলচ্চিত্রটি বক্স অফিসে বিস্ময় প্রকাশ করেছিল এবং ছবির পোশাকের নকশাও মনীশের নামকে এগিয়ে নিয়েছিল। এর পর মনীশ পরিচিতি পান এবং চলচ্চিত্রে কাজ পেতে শুরু করেন। 1993 সালে আসা গুমরাহ চলচ্চিত্রটিও তার ক্যারিয়ারকে আরও এক ধাপ এগিয়ে নিয়ে যায় এবং 1996 সালে আসা রঙ্গীলা চলচ্চিত্রটি বিস্ময়কর কাজ করেছিল। এই ছবির জন্য তিনি সেরা কস্টিউম ডিজাইনারের পুরস্কার পান। এই প্রথম কোনো কস্টিউম ডিজাইনারকে পুরস্কার দেওয়া হলো।

 

মনীশ হয়ে ওঠেন বলিউডের প্রিয় ডিজাইনার

 

এরপর আর পিছনে ফিরে তাকাতে হয়নি মনীশকে। মনীশ কাভি খুশি কাভি গম থেকে শুরু করে স্টুডেন্ট অফ দ্য ইয়ার পর্যন্ত শত শত বলিউড ফিল্মের জন্য পোশাক ডিজাইন করেছেন। মনীশ তার প্রতিভার জোরে খ্যাতির একটি বিশেষ অবস্থান অর্জন করেছেন। এখন মনীশ ডিজাইনিং থেকে এক ধাপ উপরে স্ক্রিপ্ট রাইটার এবং ডিরেক্টর হওয়ার স্বপ্ন দেখেন।মনীশ ছবিটি পরিচালনা করতে চান

 

ব্রুট ইন্ডিয়াকে দেওয়া একটি সাম্প্রতিক সাক্ষাত্কারে, মনীশ বলেছেন যে ‘আমি এখনও স্ক্রিপ্টে কাজ করছি। আমি স্ক্রিপ্ট লেখার উপর সম্পূর্ণ মনোযোগী। শিগগিরই চিত্রনাট্যের কাজ শুরু হবে। এখন আমিও চলচ্চিত্র পরিচালনা করতে চাই। আজ মনীশের 58তম জন্মদিন। অনেক বলিউড তারকাদের 3 প্রজন্মের সাথে কাজ করা মনীশ মালহোত্রার যাত্রা এখনও দীর্ঘ। ভক্তরাও এখন অপেক্ষা করছেন তার রচনা ও পরিচালনায় নির্মিত ছবিটির জন্য।

Author

Share Please

Make your comment