সমুদ্রের তলায় চাপা পড়ে রহস্যময় শহর, বিরাট আবিস্কার

mysterious city buried under sea huge discovery

কায়রোঃ খোঁজ মিলল ভূমধ্যসাগরের তলায় চাপা পড়ে থাকা নতুন শহরের । সমুদ্রের ১৫০ ফুট গভীরে দু’হাজার বছরের পুরনাে শহরের মন্দির , বিভিন্ন মূর্তির হদিশ পাওয়া গেল। ” ৬৪ টি প্রাচীন নৌকা যা বাসনপত্র , সােনার মুদ্রা ও গয়নাগাটিতে পরিপূর্ণ । ২০০০ সালে প্রথম এই শহরের খোঁজ পান একদল মেরিন আর্কিওলজিস্ট । শুরু হয় উদ্ধারকার্য, যা আজও চলছে।

মিশরীয় উপসাগরে ফ্রাঙ্ক গােডিও নামে এক গবেষক তার সহকারীদের নিয়ে ১৮ শতাব্দীর একটি ফরাসি যুদ্ধ জাহাজের খোঁজ চালাচ্ছিলেন । সেই সময় তিনি বড় বড় ৫ টি পাথর দেখতে পান । সেই পাথরের নীচ থেকেই উদ্ধার হয় এই প্রাচীন শহর । আজ থেকে প্রায় ২৭০০ বছর আগে এই শহরের প্রতিষ্ঠা হয়েছিল বলে অনুমান।
সেই সময় ভূমধ্যসাগরীয় বাণিজ্যের মূলকেন্দ্র ছিল এই শহরটি । সমগ্র শহরটিই জলের উপর অবস্থিত হওয়ায় যাতায়াতের মূল মাধ্যম ছিল নৌকা । হেঁটে যাওয়ার জন্য সেতুও ছিল।

নীল নদের ঠিক সামনেই অবস্থিত ছিল এই শহর।শহরের নাম হেরাক্লিওন । জানা যায় নীল নদের রানি হিসেবে ক্লিওপেট্রার অভিষেক ঘটেছিল এই শহরের মন্দিরেই । আবার ‘ হেলেন অব ট্রয় ‘ , যাকে মিশরীয় সভ্যতায় সবচেয়ে সুন্দরী নারী হিসাবে গণ্য করা হয় , তিনিও প্যারিসের সঙ্গে পালিয়ে আশ্রয় নিয়েছিলেন এই শহরেই ।

সমুদ্রের গভীর থেকে উদ্ধার বেশ কিছু মুদ্রা । সেগুলি সবই ৩০ শতাব্দীর । ব্রোঞ্জের মুদ্রাগুলি সবই রাজা টলেমির সময়কার । বার বার ভূমিকম্প ও সুনামির আঘাতেই এই শহরটি ধীরে ধীরে ডুবতে শুরু করে এবং শহরবাসীরা নৌকাগুলিতে মূল্যবান সম্পদ নিয়ে অন্য কোথাও চলে যাওয়ার চেষ্টা করছিল । প্রাকৃতিক দুর্যোগের শিকার হয়ে সমগ্র শহরটিই তলিয়ে যায়।

mysterious city buried under sea huge discovery

শেয়ার করে ভারতীয় হওয়ার গর্ব করুন

আপনার মতামত জানান