নির্বাচনে প্রতিশ্রুতিই সার,দেড় মাস ধরে প্রবল জলকষ্টে গ্রামবাসী

0
617

বাঁকুড়াঃ সকাল হতে না হতেই, পানীয় জলের আশায় ‘টাইম কলের’ সামনে খালি বালতি, কলসি, হাঁড়ির  লাইন পরে যায় গ্রামে।  কিন্তু টাইম কলের মুখ দিয়ে এক ফোটাও জল পড়তে দেখেনি গ্রামবাসী।বর্তমানে বাঁকুড়ার জেলার জগদাল্লা দু’নম্বর পঞ্চায়েতের পাতালখুরী গ্রামের অবস্থাটা এই রকম।

গ্রামে ভোট আসে, ভোট যায়।প্রতিশ্রুতিও থাকে সব দলের নেতানেত্রীদের। কিন্তু জল-সমস্যার সমাধান হচ্ছে কই ? ‘ … দীর্ঘ দেড় মাস ধরে ‘টাইম কলে জল’ না পেয়ে কার্যত প্রবল সমস্যার মুখে গ্রামের প্রায় ২৫০ পরিবার। গ্রামবাসীরা জানাচ্ছেন, তাদের চাষের জন্য মূলত বৃষ্টির জলের উপরেই ভরসা। অন্যদিকে পানীয় ও গৃহস্থালির অন্যান্য কাজের জন্য নল বাহিত জলের উপর নির্ভরশীল বাঁকুড়া জেলার বিস্তীর্ণ অঞ্চলের মানুষজন যা দীর্ঘ দেড় মাস ধরে বন্ধ। ফলে প্রবল সংকটে দিন কাটছে গ্রামবাসীর।

সকাল হলেই গ্রাম থেকে প্রায় দেড় থেকে দুই কিলোমিটার দূরে জল আনতে যেতে হয় গ্রামবাসীদের। তাদের অভিযোগ, গত বিধানসভা ভোটের আগেও প্রচারে মূল ইস্যু হয়ে উঠেছিল এই পানীয় জল ঘরে ঘরে পৌঁছে দেওয়ার বিষয়টি। এই প্রতিশ্রুতি দিয়ে ভোট চেয়েছিলেন প্রার্থীরা। কিন্তু এই পরিষেবার অবস্থা বেহাল এখনও।

অন্যদিকে এই জল সরবরাহ পরিষেবা নিয়ে শুরু হয়েছে শাসক বিরোধী তরজা। বিজেপির দাবি, গত লোকসভা নির্বাচনে পর থেকেই পাতালখুরী গ্রামে তাদের সংগঠন মজবুত করায়, এবারের বিধানসভা নির্বাচনে অধিকাংশ মানুষ বিজেপির হয়ে পদ্মফুলে ছাপ দিয়েছেন বলেই মনে করছেন তাঁরা। যার জেরেই গ্রামের মানুষকে এই পরিষেবা থেকে বঞ্চিত করছে শাসক দল। তবে তৃণমূল পরিচালিত পঞ্চায়েতের প্রধান,এমন সমস্যার কথা আগে শোনেনইনি বলে। দাবি করেছেন। তবে তিনি এও আস্বাস দেন যে লিখিত আকারে সমস্যার কথা পঞ্চায়েতে জানানো হলে ঠিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

শেয়ার করে ভারতীয় হওয়ার গর্ব করুন

আপনার মতামত জানান