sushila sundari: ভুলতে বসেছে সবাই, বাঘের মুখে মাথা ঢুকিয়েছিল এই বাঙালি কন্যা

0
1
sushila sundari

sushila sundari

একজন ভারতীয় জিমন্যাস্ট, ট্রাপিজ খেলোয়াড় এবং সার্কাসের দলে খেলা দেখানো প্রথম মহিলা হলেন সুশীলা সুন্দরী। তিনি প্রিয়নাথ বসুর গ্রেট বেঙ্গল সার্কাসে বাঘের খেলা দেখাতেন। তিনি ১৮৭৯ সালে এক বাঙালী হিন্দু পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তবে, তাঁর পরিবার সম্পর্কে খুব একটা তথ্য পাওয়া যায়নি। শুধু এটুকুই জানা গিয়েছে যে, কুমুদিনী নামে তাঁর একটি বোন ছিল। যিনি সুশীলা সুন্দরীর মতোন সার্কাসে খেলা দেখতেন।

তাঁর বাঘের খেলা দেখলে ভয়ে আঁতকে উঠতো দর্শকরা। কিন্তু তাঁর মনে ভয়ের লেশমাত্র নেই। তিনি হেসে খেলে বাঘের গালে হাত ঢুকিয়ে দিচ্ছেন। আর তাই হতবাক হয়ে দেখছেন দর্শকরা। উনিশ শতকের গোড়া সমাজে দাঁড়িয়ে এমনই ভয়ংকর হাড়হিম করা খেলা দেখাতেন সুশীলা সুন্দরী।

তিনি ছিলেন বাঘের সঙ্গে সার্কাসে খেলা দেখানো প্রথম মহিলা। লক্ষী ও নারায়ণ নামের দুটি বাঘকে নিয়ে তিনি খেলা দেখতেন। সুশীলা সুন্দরী যা বলতেন তাই একেবারে গুরু বাক্যর মতো পালন করতো ওই বাঘ দুটি। প্রায় ১২০ বছর আগের ঘটনা। একদিন সার্কাসেই খেলা দেখাতে দেখতে সুশীলা নারায়নকে বললেন, নারায়ণ ওপেন ইওর মাউথ।

আর তারপরই ঘটলো হাড়হিম করা ঘটনা। বাঘের মুখে মাথা ঢুকিয়ে দিলেন সুশীলা সুন্দরী। আর তারপর থেকে তাঁর এই বাঘের মুখে মাথা ঢোকানো দেখতে সার্কাসে ভিড় জমাতো সবাই। তবে, আরও সব ভয়ঙ্কর খেলার কায়দা তিনি রপ্ত করেছিলেন।

একবার খেলা দেখানোর জন্য সুশীলাকে কবর দেওয়া হলে তারপর খুব ঝড়-বৃষ্টি হয়। যার ফলে সুশীলা আটকে পরে কবরে। পরে তাঁকে উদ্ধার করতে যাওয়া হলে দেখা যায় যে, তিনি রীতিমতো গায়ের জোরে মাটি ফুঁড়ে বেরিয়ে আসছেন। তাহলে বুঝতেই পারছেন কি বিশাল ক্ষমতার অধিকারী ছিলেন তিনি। তাঁকে বাংলার ব্যাঘ্রকন্যা বলা হয়।

sushila sundari

শেয়ার করে ভারতীয় হওয়ার গর্ব করুন

আপনার মতামত জানান