রাজ্যে উপনির্বাচনের দাবিতে কমিশনে যাচ্ছে তৃণমূল

Loading

 

লড়াই ২৪ ডেস্ক: রাজ্যের সাত বিধানসভা কেন্দ্রে দ্রুত ভোট চেয়ে আবার নির্বাচন কমিশনের দ্বারস্থ হতে চেয়েছে তৃণমূল। সম্মতি মিললে যাবেন পাঁচজন সংসদ। গত ২৩ আগস্ট মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছিলেন যে, রাজ্যে ভোটের পরিস্থিতি রয়েছে আমরা চাই যত তাড়াতাড়ি সম্ভব উপনির্বাচনের দিনক্ষণ ঘোষণা করুক কমিশন। গত ৬ আগস্ট ফের রাজ্যের মুখ্য নির্বাচন অধিকারিকের কাছে দ্রুত নির্বাচনের দাবি জানায় তৃণমূল।

হাতে সময় বলতে দু মাস। ৫ নভেম্বর এর মধ্যে রাজ্যের যেকোনো একটি বিধানসভা কেন্দ্র থেকে জিতে আসতেই হবে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে। আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে নির্বাচন কমিশনে যাচ্ছেন তৃণমূলের প্রতিনিধি দল , শুক্রবার যাওয়ার কথা ছিল তবে একদিন আগেই দরবার করতে যাচ্ছে তৃণমূল। তৃণমূলের প্রতিনিধি হিসেবে দরবারে যাচ্ছেন সৌগত রায়, সুখেন্দু শেখর রায় , মহুয়া মৈত্র জহর সরকার ও সাজেদা বেগম। দুপুর তিনটে নাগাদ নির্বাচন কমিশনে যাবে প্রতিনিধি দল।

https://news.google.com/publications/CAAqBwgKMJ-knQswsK61Aw?hl=en-IN&gl=IN&ceid=IN:en

আরও পড়ুন……………. পাঁচটি তদন্ত কেন্দ্র গড়ে তুললো রাজ্য সরকার, রেল পুলিশের ফাঁড়ি পেল নয়া রূপ

রাজ্যে এখন করোনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আছে। যে পাঁচটি রাজ্য নির্বাচনে যাওয়ার কথা, সেখানেও করোনার সংক্রমণ কম। উপনির্বাচন প্রক্রিয়া কভিড বিধি মেনেই করা হবে বলে জানিয়েছে কমিশন। শান্তিপুর, দিনহাটা, ভবানীপুর, খড়দহ এবং গোসাবা রাজ্যগুলিতে উপনির্বাচন হওয়ার কথা আছে। তাছাড়া জঙ্গিপুর ও সামশেরগঞ্জেও নির্বাচন হওয়ার কথা আছে।

তৃণমূলের এই উপনির্বাচন তৎপরতাকে অনেক কটাক্ষের সম্মুখীন হতে হয়। বিজেপি সভাপতি দিলীপ ঘোষ বুধবার বলেছিলেন, “স্কুল-কলেজ সব বন্ধ রাজ্যে। কিন্তু মুখ্যমন্ত্রী উপনির্বাচন করাতে চাইছেন। এতগুলি পুরসভার নির্বাচন বাকি রয়েছে। ক্ষমতা হারানোর ভয়ে দ্রুত উপনির্বাচন চাইছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। উপনির্বাচন হবে না বলে নৈতিকতার কারণে পদত্যাগ করেছেন আমাদের একজন মুখ্যমন্ত্রী। উনিও সরে গিয়ে দেখান দেখি।” আবার  বিজেপি নেতা তথাগত রায় টুইট করে বলেছেন, “পশ্চিমবঙ্গে করোনায় মৃত্যু ও সংক্রমণ, দুই-ই বাড়ল! লোকাল ট্রেন বন্ধ, স্কুল কলেজও তাই। ভ্যাকসিন নিয়ে টানাটানি অব্যাহত। এক কথায়, একটা থমথমে পরিবেশ বিরাজ করছে। এই পরিস্থিতিতে উপনির্বাচন কী করে হবে? না না, এই অবস্থাতে কোনও ঝুঁকি নেওয়া মোটেই উচিত নয়!।”

Author

Share Please

Make your comment