রাস্তায় কেন বেশি স্পিড, চালকের কপালে চাবি ঢুকিয়ে দিল পুলিশ

0
42
প্রতীকী ছবি

নয়াদিল্লি: সারাদেশ জুড়ে লোকডাউনের মধ্যেও রাস্তায় ভয়াবহ গতি নিয়ে গাড়ি চালানোর অভিযোগ বার বার উঠে এসেছে সংবাদ মাধ্যমে। ধরতে পারলে মোটা জরিমানাও নিচ্ছে এবং কখনো কখনো গাড়ি বাজেয়াপ্তও করছে পুলিশ। তেমনই উত্তরাখণ্ডে ভয়াবহ গতিতে রাতে হেলমেট ছাড়াই বাইক চালাচ্ছিলেন এক যুবক। পুলিশের খপ্পরে পড়তে পড়তেই ঘটনা অন্য দিকে মোড় নেয়।তবে এবারে জরিমানা বা বাইক বাজেয়াপ্ত নয় ওই যুবকের কপালে চাবি গুঁজে দিলো একেবারে।

সূত্রের খবর, রামপুরের বাসিন্দা দীপক ও তার এক বন্ধু গত সোমবার রাতে বাইকে তেল ভরতে যান। ফেরার সময় টহলদার পুলিশ তাঁদের দাঁড়াতে বলে। কিন্তু তাঁরা দ্রুতগতিতে পালানোর চেষ্টা করেন। তখনই এক পুলিশকর্মী বলপূর্বক দীপকের বাইক থামান। এবং তাঁর কপালে নিজের বাইকের চাবিটি খুঁচিয়ে ঢুকিয়ে দেন। এই ঘটনার প্রেক্ষিতে তিন পুলিশকর্মীকে সাসপেন্ড করা হয়েছে। ঘটনায় জড়িত পুলিশকর্মীদের বিরুদ্ধে কড়া ব্যবস্থা নেওয়ার কথা বলেছেন উত্তরাখণ্ডের মুখ্যমন্ত্রী।

রাজ্য পুলিশের ডিজি অশোক কুমার বলেন, ‘আমি খোঁজ নিয়েছি। পুলিশকর্মীরা জানান, জোরে বাইক চালানো দেখে গাড়ি থামাতে বলেন। কিন্তু ওই ব্যক্তি বাইক না থামিয়ে স্পিড বাড়িয়ে পালানোর চেষ্টা করেন। তার জেরেই উত্তেজনার মাঝে ঘটনাটি ঘটেছে। ওই ব্যক্তি গুরুতর আহত হয়েছেন।’

পাশাপাশি পুলিশ সুপার দলীপ সিং কুনওয়ার জানান, চাবি দিয়ে খোঁচানোয় অভিযুক্ত এক সাব- ইনস্পেক্টর এবং দুই হাবিলদারকে ইতিমধ্যেই সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। বাজপুরের সার্কেল অফিসার ঘটনাটির পূর্ণাঙ্গ তদন্ত করছেন বলে আশ্বস্ত করেছেন কুনওয়ার।

এই ঘটনার পরই গোটা এলাকা উত্তপ্ত হয়ে ওঠে। থানা ঘেরাও করে শাস্তির দাবি জানায় সাধারণ মানুষ। উত্তেজনা এড়াতে পুলিশ লাঠি চার্জ করেন।অফিসাররা জানান, ইঁট-পাথর ছোঁড়া হয়েছে পুলিশকে লক্ষ্য করে। পরে আরও পুলিশ ঘটনাস্থলে আসেন। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনা গিয়েছে।

শেয়ার করে ভারতীয় হওয়ার গর্ব করুন

আপনার মতামত জানান