বিশ্ববিদ্যালয়ে জারই তালিবানি ফতোয়া, ছাত্রছাত্রীর মাঝে টাঙানো হল পর্দা

0
333

 

লড়াই ২৪ ডেস্ক: দীর্ঘ ২০ বছর পর তালিবানের দখলে আফগানিস্তান। আতঙ্কে রয়েছে মানুষজন। তবে তালিবানদের অবশ্য দাবি তারা আর আগের মতো নেই। শান্তির মাধ্যমে তারা নাকি সরকার প্রতিষ্ঠানে এসেছে। তবে দখলের পর থেকে তাঁদের বিভিন্ন কাজকর্মের সঙ্গে তাঁদের এই মৌখিক বক্তব্য একদম মিল খাচ্ছে না।

তাঁদের বিরুদ্ধে রাস্তায় নামছে নারীরা চাইছে সমানাধিকার। কিন্তু লাভের লাভ কিছুই হচ্ছে উল্টে চলছে তাঁদের ওপর তালিবানি অত্যাচার। সংবাদ মাধ্যম মাধ্যমে বারংবার উঠে আসছে তালিবানদের বে-আব্রু চিত্র। এবার এক ভাইরাল হওয়া ভিডিওতে দেখা গেছে তালিবানের এক আজব দাওয়াই। তাঁদের দাবি, পুরুষ ও মহিলা একসঙ্গে ক্লাস করলেও তাঁদের মাঝে টাঙানো থাকবে একটি পর্দা। এই ভিডিওটি ভাইরাল হতেই বিশ্বজুড়ে মানুষ তালিবানদের বিরুদ্ধে সমালোচনা করতে থাকে।

ধীরে ধীরে খুলতে শুরু করেছে দেশের সমস্ত বিশ্ববিদ্যালয়। নারী ও শিশুদের ভবিষ্যৎ নিয়ে উদ্বেগের মধ্যেই দেশে এক এক করে খুলছে বিশ্ববিদ্যালয়। মেয়েদের ক্লাস করার অনুমতি দিলেও তাঁদের বেঁধে দেওয়া হয়েছে একাধিক কড়া নিয়মবিধির শিকলে।

Read more…………………..শিক্ষক-শিক্ষিকাদের পাশে রাজ্য সরকার, খোলা চিঠিতে উল্লেখ ব্রাত্যর

তালিবান তরফে ছাত্রীদের পোশাকে আনা হয়েছে বিশেষ বিধিনিষেধ, যা তাদের বাধ্যতামূলক ভাবে মানতে হবে। শুধু তাই নয়, শ্রেণিকক্ষে তারা কোথায় বসবেন, কতক্ষণ বসবেন, এমনকি কারা তাদের পড়াবে ও কতক্ষণ পড়াবে তারও সময়সীমা বেঁধে দেওয়া হয়েছে।

স্থানীয় সংবাদমাধ্যম ‘আমাজ নিউজ এজেন্সি’ আফগানিস্তানের বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীদের কয়েকটি ছবি প্রকাশ করে লিখেছে ‘নিউ নর্মাল’। যেখানে দেখা যাচ্ছে, শ্রেণিকক্ষে মেয়ে এবং ছেলে শিক্ষার্থীদের জন্য আলাদা বসার ব্যবস্থা করা হয়েছে। এ ছাড়া ছেলে ও মেয়ে শিক্ষার্থীরা শ্রেণীকক্ষের কোন দিকে বসবে তাও ঠিক করে দিয়েছে তালিবান।

এছাড়াও সংবাদমাধ্যম সূত্রে আরও দেখা গেছে যে, শ্রেণিকক্ষের একদিকে বসে আছে ছেলে পড়ুয়ারা ও অন্যদিকে বসে আছে মেয়ে পড়ুয়ারা আর তাদের মাঝে ক্লাস চলাকালীন টাঙানো আছে একটি পর্দা।

এই আজব নিদানের ছবি ও ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় ভীষণ ভাবে ভাইরাল হয়ে পড়ে। আর তা দেখেই নিন্দায় গর্জে ওঠে নেটিজেনরা।

Advertisement
শেয়ার করে ভারতীয় হওয়ার গর্ব করুন

আপনার মতামত জানান